Time Machine - the 4th Dimension
BD Trade Blogs
> Blogs > কবিতা > গোধুলীর অন্য আলো

গোধুলীর অন্য আলো


অসীম তরফদার

পশ্চিম আকাশে আবীর ছড়িয়ে, সব রঙ মুছে দিয়ে
শুষে নিয়ে সবটুকু আলোকের ঘ্রাণ দিনমনি চলেছে অস্তাচলে;
বাবলা গাছের নিচে বসেছি পা ছড়িয়ে- পাশে সুদীপা;
সামনে আষাঢ়ের স্রোতস্বিণী নদী, পেছনে ব্যস্ত সড়ক।
দূর হতে ছুটে আসা দখিনা হাওয়া হিল্লোল তুলে
নদীজলে আর সুদীপার রেশমী দীঘল চুলের অরণ্যে;
তার মৌন দৃষ্টি ছুঁয়ে যায় দূরের আকাশ
মাথার উপর দিয়ে এক ঝাঁক পাখি উড়ে যায় ক্লান্ত ডানায়।
হঠাৎ মৌনতা ভাঙে সুদীপার-
চোখে ক্ষোভ আর দুঃখের মিলিত স্রোতের ঝর্ণা;
কষ্টের ঝড়ো বাতাসে বুকের সমুদ্রে তার বিপন্ন ঢেউ,
মুখে হতাশা আর কন্ঠে বিলাপের ধ্বনি-
“এ আমি কাকে চেয়েছি জড়াতে জীবনের সাথে !
দিনের পর দিন যে হৃদয়ের নরম জমিনে শুধু
মিথ্যে আশা আর ভ্রান্ত স্বপ্নের বীজ বুনে গেছে;
সঙ্গী করে নিয়ে যাবে বলে স্বদেশে এসে
যে ফিরে গেলো একা খানিকক্ষন আগে কোনো কথা না বলে !
এমন প্রবঞ্চক, স্বার্থপরকে ভালোবেসেছি আমি
কেনো ভাগ্যে এ বঞ্চনা, নিষ্ঠুর পরিহাস !”
ফুঁপিয়ে ঁেকদে ওঠে সুদীপা, অসহায় ভাবে মাথা রাখে কাঁধে;
একটু স্নেহ পেতেই দু’হাতে জড়িয়ে মিশে যায় বুকে
তার কষ্টগুলো মূর্হুতে নাড়া দেয় গভীরে কোথাও-
আমার বুকের মৃত্তিকা ভিজে যায় তার বিষাদের বৃষ্টিতে !
এতোদিনের চেনা সুদীপা হঠাৎ প্রস্ফুটিত হয় অচেনা সৌরভে !
বিমুগ্ধ আবেগে বলে ওঠে-
“কি অদ্ভুত প্রশান্তি প্রশস্ত এ বুকে- এতোদিন পাইনি খবর
!
সূর্যটা সবে গিয়েছে ডুবে, অন্ধকারের ছায়া ছুঁয়েছে
আকাশ,
সন্ধ্যা তারা উঠেছে জ্বলে আপন দীপ্তিতে-
এমন গোধুলী বুঝি কখনও আসেনি আগে।


সাহিত্য >> কবিতা